1. [email protected] : দেশ রিপোর্ট : দেশ রিপোর্ট
  2. [email protected] : নিউজ ডেস্ক : নিউজ ডেস্ক
  3. [email protected] : নিউজ ডেস্ক : নিউজ ডেস্ক
  4. [email protected] : অনলাইন : Renex অনলাইন
বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ০৮:৩৯ পূর্বাহ্ন

শেরপুরে বালুমহালের টেন্ডার নিতে প্রতিপক্ষ কনস্ট্রাকশনের কর্মীকে অপহরণের অভিযোগ!!

নিজস্ব সংবাদদাতা
  • শনিবার, ১৬ মার্চ, ২০২৪

শেরপুরে বালুমহলের ইজারা পেতে প্রতিপক্ষ ঠিকাদারের এক কর্মীকে অপহরণ করে মারধোর করার অভিযোগ ওঠেছে। গত ১৪ মার্চ শেরপুর সদরের জেলাপ্রশাসন কার্যালয়ে বালু মহলের টেন্ডার ড্রপ করতে গেলে জান্নাত কনস্ট্রাকশন নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কর্মীকে অপহরণ করে মারধোরের অভিযোগ তুলেছে নাহিদ হোসেন নামের এক ভুক্তভোগী। এসময়, তাকে জীবন নাশের চেষ্টা চালানো হয়েছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি। নাহিদ বর্তমানে সদর হাসপাতালে চিকিসাধীন রয়েছে।

ভুক্তভোগী নাহিদ নগরের ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান জান্নাত কনস্ট্রাকশনের সহকারী ম্যানেজার হিসিবে কাজ করেন। তিনি অভিযোগ করেন, গত বৃহস্পতিবার একটি বালু মহলের টেন্ডার ড্রপের দিন নিধারণ করে জেলা প্রশাসন। সেখানে স্থানীয় আকবর চেয়ারম্যান ও যুগলীগ সভাপতিসহ কয়েকটা ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান  প্রশাসনের কতিপয় কর্মকর্তার সহায়তার একটি সিন্ডিকেট তৈরী করে তাদের বাইরে কেউ যাতে নতুন করে টেন্ডার ড্রপ করতে না পারে সে জন্য সকাল থেকেই অবস্থান নেয়। সেই

সিন্ডেকেটের বাইরে গিয়ে জান্নাত কনস্ট্রাকশনের সহ-ব্যবস্থাপক নাহিদ  সেখানে টেন্ডার ড্রপ করতে গেলে তাকে সেখান থেকে ধরে নিয়ে যায় কতিপয় সন্ত্রাসী। পরবর্তীতে নাহিদকে বেদম মারধোর করে টেন্ডার ফরম ছিনিয়ে নেয়। একপর্যায়ে নাহিদ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে রাস্তায় ফেলে চলে যায় তারা। এসময়, নাহিদকে বিষয়টি নিয়ে বাড়াবাড়ি করলে জীবন নাশের হুমকীও দিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা। নাহিদের অভিযোগ, সন্ত্রাসীদের সবাই প্রতিপক্ষ ঠিকাদার আকবর চেয়ারম্যানের লোক।

সুত্র জানায়, গত  ১৪ মার্চে  শেরপুর সদর থানাধীন ১০ নং চরপহ্মীমারা মৌজার সরকারী বালুমহল ইজারা জন্য দিন ধার্য্য করা হয়। জিন্নাত শহীদ পিংকি, রেভিনিউ ডেপুটি কালেক্টর ও সদস্য সচিব জেলা বালুমহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা কমিটি, শেরপুর স্বাহ্মরিত ১৩/০৩/২৪ তারিখে শর্তাবলী অনুসরণ করে মোট ১৮ টি দরপত্র বিক্রি হয়। অভিযোগ রয়েছে, দরপত্র দাখিলের দিনই সরকারী বালুমহাল দূর্নীতির মাধ্যমে কম মূল্যে হরিলুট করতে স্থানীয় সিন্ডিকেট ও প্রশাসনের দূর্নীতিবাজরা একজোট হয়ে টেন্ডার ড্রপ এর জায়গাগুলোতে পাহারা বসায়। প্রায় ৩৬ লাখ টাকা মুল্য নির্ধারন করে আকবর চেয়ারম্যান সিন্ডিকেট দরপত্র দাখিল করে। অন্য কেউ যাতে দরপত্র দাখিল করতে না পার সে জন্য স্থানীয় ক্যাডাররা  আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে মহরা দিতে থাকে। এরইমধ্যে ৭৫ লাখ ২০ হাজার টাকা মূল্য নির্ধারন করে জান্নাত কন্সট্রাকশন টেন্ডারবক্সে দরপত্র দাখিল করলে দরপত্র সিন্ডিকেট হ্মিপ্ত হয়ে দরপত্র ফেলা জান্নাত কনস্ট্রাকশন কতৃপক্ষকে হুমকী দেয়ার অভিযোগ ওঠে।

জান্নাত কন্সট্রাকশনের অভিযোগ, সিন্ডিকেটের বাইরে গিয়ে দরপত্র ফেলায় তাদের মালিককে মোবাইলে ফোন করে হাত পা ভেঙে ফেলার এবং পুলিশ দিয়ে ক্রসফায়ার করার হুমকি দেয় জেলা যুবলীগের সভাপতি।  জালিয়াতি ও দূর্নীতির মাধ্যমে জান্নাত কন্সট্রাকশনের মালিক ঢাকায় অবস্থান করলেও তার স্বাহ্মর ছাড়াই তার দরপত্র বাহকের হ্মাহ্মর নিয়ে নির্দিষ্ট সময়ের আগেই টেন্ডার বক্স খুলে জান্নাত কন্সট্রাকশনের দরপত্র ফিরিয়ে দেয়া হয় বলেও অভিযোগ করেন তাদের। বলেন,  লাখ লাখ টাকার ঘুষ লেনদেনের বিনিময়ে  প্রশাসেন দূর্নীতিবাজ কিছু কর্মকর্তার সহায়তার সর্বোচ্চ দরদাতার চেয়ে প্রায় ৪০ লাখ টাকা কম মূল্যের দরদাতাকে দরপত্র  পাইয়ে দেয়া হয়। বিষয়টি নিয়ে মেরপুরের জেলাপ্রশাসককে কয়েক দফা ফোন দিলেও তাকে পাওয়া যায়নি। একইসাথে অভিযুক্ত আকবর চেয়ারম্যানের নম্বর বন্ধা পাওয়া যায়।

শেয়ার:
আরও পড়ুন...
স্বত্ব © ২০২৩ দৈনিক দেশবানী
ডিজাইন ও উন্নয়নে - রেনেক্স ল্যাব